মাযহাব ও তাকলিদ

0
97
মাযহাব ও তাকলিদ
মাযহাব ও তাকলিদ

মাযহাব ও তাকলিদ

মাযহাব ও তাকলিদ

মাযহাব অর্থ চলার পথ। মুজতাহিদগণ কুরআন সুন্নাহর আলােকে বিভিন্ন বিষয়ে যে সকল গবেষণামূলক সমাধান দিয়েছেন সে সকল সমাধান ও ব্যাখ্যার নাম মাযহাব।

মাযহাব

কোনাে মুজতাহিদ ফকিহ কুরআন ও সুন্নাহর আলােকে গবেষণার ভিত্তিতে কোনাে বিষয়ে যে সিদ্ধান্ত প্রদান করেন সেটাই তার মাযহাব।মুজতাহিদগণ মূলত যে বিষয়ে কুরআন ও সুন্নাহর মধ্যে সুস্পষ্ট বর্ণনা নেই সে বিষয়ে কুরআন ও সুন্নাহর আলােকে ইজতেহাদ করে ফতওয়া দেন। সুতরাং তাদের এই ফতওয়ার উপর আমল করা পক্ষান্তরে কুরআন ও সুন্নাহর উপর আমল করার শামিল। সাহাবায়ে কিরাম বিভিন্ন বিষয়ে তাদের মধ্যকার বিজ্ঞ ব্যক্তিদের ফতওয়ার উপর নির্ভর করতেন। মুসলিম

উম্মাহ চারজন মুজতাহিদ ইমামের ফতওয়া অনুসরণ করেন। তারা হলেন, ইমাম আবু হানিফা (র.), ইমাম মালিক (র.), ইমাম শাফিই (র.) ও ইমাম আহমদ ইবনে হাম্বল (র.)। তাদের নাম অনুসারেই চার

মাযহাব- হানাফি, মালিকি, শাফিয়ি ও হাম্বলি মাযহাব নামে পরিচিত। ইজতিহাদের যােগ্যতা রাখেন না এমন প্রত্যেক মুসলমানের জন্য চার মাযহাবের যে কোনাে এক মাযহাব অনুসরণ করা ওয়াজিব। এটি ইজমার মাধ্যমে সাব্যস্ত হয়েছে। আর ইজমা অস্বীকার করা গােমরাহি। সুতরাং যারা চার মাযহাবের মধ্যে যে কোনাে এক মাযহাব অনুসরণ করে না। তারা গােমরাহ বা পথভ্রষ্ট ।

তাকলিদ

তাকলিদ অর্থ অনুগমন, অনুসরণ করা। শরিয়তের পরিভাষায়, কোনাে মুজতাহিদ ইমামের অভিমতকে সত্য বলে বিশ্বাস করে দলিলের খোঁজ না করে উক্ত ইমাম বা মুজতাহিদের অনুসরণ করে চলাকে তাকলিদ বলা হয়। (ফাতওয়া ও মাসাইল)

তাবিঈগণের যুগ হতে ফিকহ সংকলনের যুগ পর্যন্ত মুজতাহিদ ও মুকাল্লিদ উভয় শ্রেণির লােক বিদ্যমান ছিলেন। মুজতাহিদ ছিলেন সেসব লােক যারা কিতাব ও সুন্নাহর দলীল ও ভাষ্য হতে মাসআলা-মাসাইল। বের করার যােগ্যতা অর্জন করেছিলেন। মুকাল্লিদ ছিলেন তারা, যারা কিতাব ও সুন্নাহর দলীল ও ভাষ্য হতে মাসআলা-মাসাইল আহরণ করার মত যােগ্যতা অর্জন করতে পারেননি।

তাকলিদ-এর প্রকারভেদ

তাকলিদ দুই প্রকার। যথা:

১. তাকলিদে মুতলাক: কুরআন সুন্নাহর মর্ম অনুধাবনের ক্ষেত্রে একই ইমামকে নির্দিষ্ট না করে বিভিন্ন বিষয়ে বিভিন্ন ইমামের অনুসরণকে তাকলীদে মুতলাক বা মুক্ত তাকলিদ বলা হয়। ইসলামের প্রথম যুগে মুক্ত তাকলিদের প্রচলন ছিল। সে যুগে কোনাে মাসআলার সমাধানের প্রয়ােজন দেখা দিলে সাধারণ লােকগণ তাঁদের এলাকায় অবস্থানকারী ফকিহগণের কারাে নিকট উপস্থিত হয়ে প্রয়ােজনীয় বিধান জেনে নিতেন? মুজাহিদ ও ফকিহগণ ক্ষেত্রবিশেষেতাদের ইজতিহাদ ভিত্তিক ফতওয়াও দিতেন। কিন্তু দ্বিতীয় যুগে সাধারণভাবেই মানুষের মাঝে তাকলিদ এর ধারা বিস্তার লাভ করে। অর্থাৎ জনসাধারণ ও আলিমগণ সকলেই তাকলিদ শুরু করেন।

২. তাকলিদে শাখসি: তাকলিদে শাখসি হলাে সকল বিষয়ে একই ইমামের ব্যাখ্যা ও সিদ্ধান্তের অনুসরণ করা, অথবা সে ইমামেরই মতাদর্শে প্রতিষ্ঠিত কোনাে ইমামের অনুসরণ করা। বর্তমান যামানায় যে কোনাে নির্দিষ্ট মাযহাবের ইমামের তাকলিদ বা অনুসরণ করা ওয়াজিব।

মুজতাহিদ, মুকাল্লিদ ও গায়র মুকাল্লিদ

কুরআন মজিদ ও হাদিস শরিফের আলােকে উদ্ভূত সমস্যার সমাধান যে “” অভিজ্ঞ আলিম দেয়ার ক্ষমতা রাখেন তাকে মুজতাহিদ বলা হয়। যারা কুরআন ও হাদিস শরিফের উপর আমল করতে গিয়ে মুজতাহিদ ইমামগণের অনুসরণ করেন, তাদেরকে মুকাল্লিদ বলে। যারা মুজতাহিদ না হওয়া সত্ত্বেও কোনাে মুজতাহিদ ইমামের অনুসরণ করে না তাদেরকে গায়র মুকাল্লিদ বলা হয়। এরা সরাসরি কুরআন ও সুন্নাহ অনুসরণের কথা বলে। অথচ কুরআন-সুন্নাহ অনুধাবনের মতাে জ্ঞান ও যােগ্যতা তাদের নেই।

চার মাযহাব

ইজমার ভিত্তিতে মাযহাব চারটির মধ্যে সীমাবদ্ধ। মাযহাব অবলম্বনের ক্ষেত্রে এ চারটিতে সীমিত থাকার আবশ্যকতা ও বাস্তবতা সম্পর্কে শাহ ওয়ালীউল্লাহ মুহাদ্দিসে দেহলভি (র.) বলেন,

১. মুসলিম উম্মাহ এ বিষয়ে ইজমায় (ঐকমত্যে) উপনীত হয়েছে যে, শরিয়তের পরিচিতি লাভের ক্ষেত্রে পূর্বসূরিগণের অনুসরণ করতে হবে। আর প্রতিষ্ঠিত এ চার মাযহাবের মধ্যে যেহেতু পূর্ববর্তীগণের গবেষণালব্ধ ব্যাখ্যা ও অভিমত বিশুদ্ধভাবে সন্নিবেশিত হয়েছে এবং সংশ্লিষ্ট যাবতীয় বিষয় পরিমার্জিত রয়েছে তাই এর অনুসরণ অপরিহার্য।

২. হাদিস শরিফে আছে, “বৃহত্তম মুসলিম জামাআতের অনুসরণ করবে।” যেহেতু পূর্বেকার অন্যান্য মাযহাবের ধারাবাহিকতা বিলুপ্ত হয়ে মাযহাব কেবলমাত্র চারটিতে সীমিত হয়েছে এবং বিশ্ব মুসলিম

এরই অনুসরণ করছে তাই এখন এর ব্যতিক্রমের অবকাশ নেই।

৩. উত্তম যুগ-এর থেকে যেহেতু সময়ের ব্যবধান দীর্ঘতর হয়েছে; আমানতদারী ও বিশ্বস্ততার চরম অভাব দেখা দিয়েছে, তাই উলামায়ে সূ’ তথা অসৎ আলিম কিংবা এমন লােকের অনুসরণের আশংকা বিদ্যমান, যার মাঝে ইজতিহাদের শর্তাবলি আছে কি নেই তা যাচাই করে দেখাও কঠিন কাজ; কাজেই স্বীকৃত প্রসিদ্ধি প্রাপ্ত চার মাযহাবের অনুসরণ করাই অপরিহার্য। (ইকদুল জিদ)

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here